পাব্জি কেন এতো জনপ্রিয়

পাব্জি কেন এতো জনপ্রিয়
পাব্জি কেন এতো জনপ্রিয়

পাব্জির এই জনপ্রিয়তার মধ্যে সবচেয়ে বড় কারন হলো এটির গেমপ্লে এখানে আপনি বাস্তব পৃথিবীর মতো দৌড়, জাম্প, এছাড়া একজন আরেকজনের সাথে কথা বলা নিজেকে লুকিয়ে রাখা, ড্রাইভ করা মারা যাওয়া মোট কথা সব কিছুই রয়েছে, এছাড়া গেমটির ক্রিয়েটিভিটি নতুন নতুন আপডেট গেমটিকে আরো আকর্ষনিয় করে তুলেছে! পাব্জি কেন এতো জনপ্রিয় তার একটি কারন

৯ম শ্রেনীর ও ১০ শ্রেনীর কয়েজন স্টুডেন্টকে একটি অজানা দ্বীপে নিয়ে যাওয়া হলো তাদের সাথে দেওয়া হলো কিছু খাবার,পানি আর অশ্র! তাদের গলায় বেধে দেওয়া হলো একটি ব্যান্ড যারাই এখান থেকে পালাতে চাইবে তারাই মারা যাবে! আর এই দ্বিপে যারা আছে তাদের সবাইকে মেরে এই দ্বিপে থেকে মুক্তি পেতে পারবে!

 

২০০২ সালে মুক্তি পাওয়া এই জাপানিস ব্যাটাল র‍্যায়াল ছবির কাহিনী এটি! এই কাহিনি থেকেই অনুপ্রানিত হয়ে তৈরী করা হয়েছে বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় ভিডিও গেম পাব্জি বা প্লেয়ার আননোন ব্যাটেল গ্রাউন্ড! এই পাব্জি গেম এর উত্থান এবং ব্যাবসায়িক সফলতা নিয়েই আজকের বিশ্লেষন!

 

শুরুতেই পাব্জির উত্থান এর কথা সংক্ষেপে জানা যাক! পাব্জি আবিষ্কার এর পেছনের মানুষটি হলো ব্রেন্ডন গ্রিন গ্রিন তার ক্যারিয়ার শুরু করে ডিজাইনার হিসেবে, তিনি ছিলেন ফটোগ্রাফারও। গেমিং নিয়ে তার কোনো ডিগ্রি বা প্রশিক্ষন ও ছিলো না! তবে ব্রাজিলে থাকা কালিন প্রচুর মিলিটারি গেম ভিত্তিক গেম খেলতেন তিনি। তিনি ভাবতেন অনলাইনে যেসব গেম পাওয়া যায় সেগুলা চোট্র এই ম্যাপের ভিতর সীমাবদ্ধ এবং সেইসব গেমের কোনো বৈচিত্র‍্যও নেই! তিনি সপ্ন দেখেছিলেন একটি বড় পরিসরে গেম তৈরী করবেন যাতে অনেক মানুষ একসাথে খেলতে পারবে! ২০১০ সালে তিনি গ্রিন আমরা টু মোড ডেজেড আমে একটি ব্যাটেল রয়েল গেম তৈরী করেন!

 

ব্যাটেল রয়েল জনরার মতো গেমটি বেচে থাকা একশন এর জন্য দ্রুত জনপ্রিয়তা পায় কিন্তু গেমগুলোতে কিছু ব্যাপারে অভাব ছিলো যার জন্য গেমগুলো সঠিক পুর্নতা পায়নি এবং ব্যবসা টিকিয়ে রাখায় হিমশিম খাওয়ার ময়ো পিরিস্থিতি তৈরী হয়!

 

সেসময় সনি অনলাইন এন্টারটেনমেন্ট ব্রেন্ডন গ্রিনের কাজগুলোর দিকে নজর রাখছিলো তাদের থেকে তিনি প্রস্তাব পান এবং সেই প্রস্তাবে সাড়া দিউএ এইচ ওয়ান জেড ওয়ান নামে একটি নতুন ব্যাটেল রয়েল গেম তৈরীর প্রজেক্টে কন্সসালটেন্ট হিসেবে যোগ দেন তিনি! ২০১৫ সালে প্রতিষ্ঠান টি কিনে নেয় যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক একটি প্রতিষ্টান ডে ব্রেক! এইচ ওয়ান এবং জেড ওয়ান দুটি আলাদস সংস্করন! প্রজেক্টি শেষ হওয়ায় গ্রিনের চুক্তির মেয়াদ ও শেষ হয়ে যায়!

 

সে সময় দক্ষিন কোরিয়ার কম্পানি বুলুনহোল চাচ্ছিলো তাদের গেমগুলো আরো আধুনিকীকরণের মাধ্যমে বিশ্ব সব স্থানে ছড়িয়ে দিতে, গ্রিন ডিজেড এর গেমটি খেলে গ্রিনের প্রতি আগ্রহী হয়ে উঠে বুলু হোলের ডিরেক্টর চাং হান কিম! তার দেওয়া প্রস্তাবে গ্রিন বুলু হোলের ক্রিয়েটিভ ডিরেক্টর

হিসেবে যোগ দান করেন শুরু করে নতুন গেম তৈরির কাজ। ২০১৬ সালে বাকি সময় নতুন গেমের প্রতি ব্যয় কিরে গ্রিন ও বুলু কম্পানি

 

২০১৭ সালে বাজারে রিলিজ হয় প্লেয়ার আননোন ব্যাটেল গ্রাউন্ড (পাবজির বিটা ভার্সন) গ্রিন গেমটির পিছনে অনেক শ্রম এবং অতিরিক্ত অর্থ ব্যয় করেছিলো সংশ্লিষ্টরা!

 

পাব্জি কেন এতো জনপ্রিয়
পাব্জি কেন এতো জনপ্রিয় : Image Credit

চলুন জেনে নেওয়া যাক পাব্জি কেন এতো জনপ্রিয় :

 

পাব্জিতে একসাথে ১০০ জন একসাথে খেলতে পারে! প্লেন থেকে বিশাল একটি ম্যাপের যেকোনো স্থানে তারা নামতে পারে। এই ১০০ জনের মধ্যে একে অপরের সাথে লড়াই করে যে শেষ পর্যন্ত টিকে থাকতে পারবে সেই বিজয়ী হিসেবে গন্য হবে। এটাই পাব্জি গেমের মুল নিয়ম এর পর কম্পানিটির নাম পালটে রাখা হয় পাব্জি করপোরেশন।

 

২০১৭ সালে ডিসেম্বরে পিসির জন্য গেমটি রিলিক হয় পরের বছর অন্যন্য ডিভাইসের জন্য ও এটি রিলিস হয়। ২০১৭ সালে শুরুতে যখন বেটা ভার্সন বেরিয়েছিলো তখন মাসখানেকের ব্যবধানে প্রায় মিলিয়ন ডাউনলোড হয়েছিলো গেমটি! ৩ মাসের ব্যবধানে সেই সংখ্যা পোছে যায় ৩০ মিলিয়ন এ। ডিসেম্বরে ফুল ভার্সন রিলিস এর পর গেমটির ডাউনলোড হয়ে দাঁড়ায় ৭৩৪ মিলিয়ন এ এর মধ্যে ২৪ শতাংশ ডাউনলোড হয় ভারতে! দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে এবং তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

 

২০১৮ সালে পাব্জির মোট আয় হয় ৯২০ মিলিয়ন ডলার, এর মধ্যে মুনাফা ছিলো ৩১০ মিলিয়ন ডলারে! বাজারে আসার পর এই পর্যন্ত তাদের আয় তিন বিলিয়ন ডলার!

 

পাব্জির এতো আয়ের মুল উৎস হলো গেমটির পার্চায়েস পোগ্রাম এই পোগ্রামটির মাধ্যমে একজন প্লেয়ার নতুন পোশাক ক্রয় করতে পারে এবং অন্যন্য সুবিধা গ্রহন করতে পারে যা অন্যদের থেকে আলাদা রুপ প্রধান করে!

 

তথ্য বিশ্লেষন করে দেখা যায় পাব্জির ব্যবহারকারীর সংখ্যা দৈনিক ৫ কোটি এর মধ্যে দেড় লাখ খেলোয়াড় ইন এ্যাপ পার্চায়েস সুবিধা গ্রহন করে থাকে! পাব্জির আয়ের আরেকটি উৎস হচ্ছে গেমের মধ্যে থাকা স্পন্সারশিপ, তাদের আয়োজন করা টুর্নামেন্ট।

 

এছাড়া পাব্জিতে ভয়েস ডাটা বিক্রি করা হয়! পাব্জি খেলার সময় খেলোয়াড় রা তাদের পছন্দ অপছন্দের কথা অন্যের সাথে বলে এই কথা গুলো এনালাইসিস করে মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে বিক্রি করে দেয় এটভারটাইসদের কাছে।

 

এছাড়া পাব্জিকে কেন্দ্র করে নানা ভাবে আয়ের উৎস তৈরি হয়েছে যেমন পাব্জিতে ইন এপ পার্চায়েস এর জন্য যাদের ক্রেডিট কার্ড নেই তারা বিভিন্ন পেইজ বা অন্য মাধ্যমে সেই ইউসি বা ক্রেডিট কিনে থাকে এছাড়া পাব্জির মডেলের কাপড়, খেলনা বানিয়েও ব্যবসা করছেন।

 

জনপ্রিয়তা বা পাব্জির আয়ের ধাক্কা এসেছিলো ২০২০ সালে যখন ভারত চীন সহ অনেক দেশেই পাব্জি ব্যান করে দেওয়া হয়, এই দেশগুলোর নিষেধাজ্ঞা জারি করার কারন হচ্ছে শিশু কিশোর বুড়ো সবাই এই গেমে আসক্ত হয়ে গিয়েছিলো এবং দ্বিতীয় কারন হচ্ছে গেমের মাধ্যমে অতিরিক্ত ভায়লেন্স ছড়াচ্ছিলো! এতে মানুষ উগ্র সভাবের হয়ে যাচ্ছিলো যা মানুষের মস্তিস্কে প্রভাব পড়ছিলো!

 

সামনের দিনগুলোর পাব্জির জন্য অপেক্ষা করছে বড় চ্যালেঞ্জ। ব্যবসা টিকিয়ে রাখতে পাব্জি টিক কি কি পদক্ষেপ নেয় এটাই দেখার বিষয়!

 

পাব্জি কেন এতো জনপ্রিয়? এই পোষ টি লিখেছে আমাদের একজন কন্ট্রিবিউটর আপনিও আপনার মুল্যবান পোষ্ট করতে পারেন আমাদের সাইটে এখানে ক্লিক করুন

 

Summary
পাব্জি কেন এতো জনপ্রিয়
Article Name
পাব্জি কেন এতো জনপ্রিয়
Description
পাব্জি কেন এতো জনপ্রিয় তার আরেকটি কারন এটির গেমপ্লে এখানে আপনি বাস্তব পৃথিবীর মতো দৌড়, জাম্প,কথা বলা নিজেকে লুকিয়ে রাখা,মোট কথা সব কিছুই রয়েছে
Total
0
Shares
Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Previous Post

স্মার্টফোনে সেরা ১০ মেসেজিং ও কলিং এ্যপস

Next Post
কাঞ্চনজঙ্ঘা

কাঞ্চনজঙ্ঘা হিমালয় পর্বতমালার অসম্ভব সুন্দর একটি পর্বতসৃঙ্গ এর নাম!